1. newsshariful@gmail.com : Md shariful islam : Md shariful islam
  2. torikhossainbappy@gmail.com : Torik Hossain Bappy : Torik Hossain Bappy
মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ০৪:৩৬ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ:
মাকসুদকে মেনে নিবে না বন্দরের মুক্তিযোদ্ধরা সিদ্ধিরগঞ্জে যুবলীগ অফিসে টেনশন গ্রুপের হামলা, নারী নেত্রীকে শ্লীলতাহানী প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে মহানগর আ’লীগ বর্ণীল আয়োজন আওয়ামীলীগের ৭৫ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে খান মাসুদের নেতৃত্বে মিছিল নিয়ে যোগদান রাসেল ভাইপারসহ ডেঙ্গু মশার আবাসস্থল ধ্বংস কার্যক্রম উদ্বোধন করে দেশবাংলা সংগঠন রূপগঞ্জে মেয়র প্রার্থী রফিক ও তার ভাই শফিক হিন্দু ভোটারদের হুমকি দিচ্ছে -বাদশা আবাসিক হোটেল থেকে ২০ নারী-পুরুষ আটক হাজীগঞ্জে জলাবদ্ধ ভাঙা রাস্তা পরিদর্শন করলেন চেয়ারম্যান ফাইজুল ইসলাম কবি কাজী নজরুল ইসলাম সম্মাননা অ্যাওয়ার্ডে ভূষিত হলেন হাজী মোঃ জাহাঙ্গীর আলম সোনারগাঁয়ে হৃদয় ভূঁইয়া হত্যা মামলায় ১৫ আসামী কারাগারে

কেউ আমাকে নেতা বানায় নাই, মাইনাস করে ছিলো : আনোয়ার হোসেন

স্টাফ রিপোর্টার
  • সংবাদ প্রকাশের সময়ঃ শুক্রবার, ১৭ মে, ২০২৪
  • ৫১ জন্য পাঠক দেখেছে।

স্টাফ রিপোর্টার: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বাকশাল করার সিদ্ধান্ত সঠিক ছিল বলে মন্তব্য করেছেন নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসনে। তিনি বলেছেন বঙ্গবন্ধু প্রমান করতে চেয়ে ছিলেন একটি প্লাটফর্মে ১০জন নির্বাচন করবে, বাংলাদেশের সাধারণ মানুষ যাকে নির্বাচিত করবেন তিনিই নেতা হবে।

শুক্রবার ১৭মে বিকেল ৪টায় ২নং রেলগেইট সংলগ্ন জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষ্যে মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন সালের ১৫আগস্ট শেখ হাসিনা ও শেখ হাসিনা দেশের বাইরে ছিল বলেই বেঁচে গেছেন এবং দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে, বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার হয়েছে। বর্তমান আওয়ামী লীগ তৃনমূলের আওয়ামী লীগ। তৃনমূল আছে বলেই আওয়ামী লীগ শক্তিশালী। দুই নেত্রীকে যখন জেলে পাঠানো হয়ে ছিলো। সেদিন শেখ হাসিনা ও খালেদা জিয়াকে মাইনাসের যে প্রক্রিয়া হয়ে ছিলো সেই প্রক্রিয়ায় কিন্তু আওয়ামী লীগের অনেক নেতাই জড়িত ছিলেন। শেখ হাসিনা যখন গৃহবন্দী ছিলেন। তখন তিনি টেলিফোনে নেতাকর্মীদের সাথে যোগাযোগ করতেন। আমাদের সাথে যোগাযোগ করেছিলো আমরা সেদিন ছুটে গিয়ে ছিলাম। অনেক কষ্ট করে ওনার সাথে দেখা করতে পেরেছিলাম। আমরা তখন শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি সাধারণ সম্পাদক ছিলাম। আমাদের যে নির্দেশ দিয়েছিলেন আমি এবং খোকন সাহা সেই নির্দেশ মত কাজ শুরু করেছিলাম। ৭৫’র পর চক্রান্ত হয়েছিলো, ১/১১তে হয়েছিলো এখন আবার চক্রান্ত হচ্ছে আওয়ামী লীগকে দ্বিখন্ডিত করার জন্য। বিভিন্ন জেলায় জেলায় আওয়ামী লীগের ইমেজ নষ্ট করার জন্য স্বাধীনতা বিরোধী চক্র এবং দলের ভেতরে ঘাপটি মেরে থাকা ষড়যন্ত্রকারী আওয়ামী লীগকে দ্বিখন্ডিত করার চেষ্টা করছে। তৃনমূল যদি ঐকবদ্ধ থাকে আওয়ামী লীগকে কেউ দ্বিখন্ডিত করতে পারবে না।

নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন,আপনারা স্লোগান দিলেন আনোয়ার খোকন এগিয়ে চলো আমরা আছি তোমার সাথে। এই স্লোগান পাড়ায় পাড়ায় মহল্লায় মহল্লায় তুলতে হবে। যারা ষড়যন্ত্র করছেন তাদেরকে রুখে দিতে হবে। আমরা সাহস করে এগিয়েছি বলেই মহানগর আওয়ামী লীগ এই পর্যায় আসছে। অনেকেই বলে মহানগর আওয়ামী লীগ নাকি দুর্বল। কিছুই করে নাই। আজকের এই সভা দেখে কি মনে হয় মহানগর আওয়ামী লীগ দুর্বল। ষড়যন্ত্রকারীদের বিষদাঁত ভেঙ্গে দিয়ে প্রমান করে দিবো আনোয়ার খোকনের নেতৃত্বে মহানগর আওয়ামী লীগ কতটা শক্তিশালী।

সমালোচনাকারীদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, অনেকে অনেক কথাই বলেন। আনোয়ার হোসেনকে নেতা বানিয়ে দিয়েছেন। আনোয়ার হোসেনকে কেউ নেতা বানায় দেয়নাই। আনোয়ার হোসেন তৃনমূল থেকে উঠে এসেই নেত্রী সেহ্নভাজন হয়েছেন। নারায়ণগঞ্জের কোন নেতাই আমাকে নেতা বানায় দেয়নাই। অনেকে আমাকে মাইনাস করে ছিলেন। কিন্তু শেখ হাসিনা মনে করেছেন আনোয়ার হোসেনের মত লোক নারায়ণগঞ্জে দরকার। তাই আমাকে মাইনাস করতে পারেন নাই। ৭২ সালে আমার রাজনীতিতে পদার্পন। ৭৫’র সাথে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর এই নারায়ণগঞ্জে আমিই প্রথম বঙ্গবন্ধুর হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করে ছিলাম। শেখ হাসিনা সব তথ্য জেনেই আমাকে দায়িত্ব অর্পন করেছেন। শেখ হাসিন থাকলে আওয়ামী লীগ থাকবে।

মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খোকন সাহার সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন, মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি শেখ হায়দার আলী পুতুল, মাসুদুর রহমান খসরু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জিএম আরমান, দপ্তর সম্পাদক বিদ্যুৎ কুমার সাহা, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মজিবর রহমান। আরো উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি রবিউল হোসেন, সদস্য শিপন সরকার শিখন, বন্দর থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী খান মাসুদ,২২নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী শহীদ, সাধারণ সম্পাদক গোলাম সারোয়ার সবুজ, ২৩নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মাহবুবর রহমান কমল, সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান সাজু, ২৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি বুলবুল, সাধারণ সম্পাদক ফারুক হোসেন জনি, ২৩নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা হাবিবুর রহমান হাবিব সহ বিভিন্ন ওয়ার্ডের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

অনুগ্রহ করে আপনাদের ব্যক্তিগত সোশ্যাল মিডিয়া গুলিতে প্রকাশিত এই প্রতিবেদন টি শেয়ার করে আমাদের সাথেই থাকুন ধন্যবাদ।

এ জাতীয় আরও সংবাদ ক্যাটাগরি
  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৩:৪৭
  • ১২:০৪
  • ৪:৪১
  • ৬:৫৩
  • ৮:২০
  • ৫:১২