1. newsshariful@gmail.com : Md shariful islam : Md shariful islam
  2. torikhossainbappy@gmail.com : Torik Hossain Bappy : Torik Hossain Bappy
বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ১২:৪২ অপরাহ্ন
সর্বশেষ:
গ্রেপ্তারের ভয়ে পালিয়েছে মাকসুদ চেয়ারম্যান  অর্থ সম্পদে শুভ ও নার্গিসের ধারে কাছেও নেই বাকি তিন প্রার্থী বাড়ি গাড়ি কিছুই নেই নার্গিস মাকসুদের চাঁনমারী মসজিদের স্থান পরিদর্শনে সেলিম ওসমান সরকারী আশ্রয় কেন্দ্রে সেলিম ওসমান, শিশু ও বৃদ্ধদের জন্য উপহার নিয়ে যাবেন বৃহস্পতিবার আমাদের সংগ্রামে ভিডিও প্রকাশের পর নবীগঞ্জ গালর্স স্কুলের সেই শিক্ষিকার সমাধান দিলেন সেলিম ওসমান রূপগঞ্জে ইউপি চেয়ারম্যানের সঙ্গে এলাকাবাসীর মতবিনিময় নির্বাচনে প্রভাব বিস্তার করছে মাকসুদ পরিবার, ক্যাম্প নির্মাণে বাধা থানায় অভিযোগ বন্দরে তাসলিমা নামে এক গৃহবধুর উপর হামলা, বাড়িঘর ভাঙচুর সিদ্ধিরগঞ্জে ফিল্মি স্টাইলে সোয়া ৪ লাখ টাকা ছিনতাই; মামলা হয়নি এখনও

কেয়ারিয়া মৌজায় জমি অধিগ্রহন বন্ধে মানববন্ধন, ডিসিকে স্মারক লিপি

বিশ্বজিত দাস
  • সংবাদ প্রকাশের সময়ঃ মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল, ২০২৪
  • ৬৩ জন্য পাঠক দেখেছে।

বিশ্বজিত দাস: নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার কেয়ারিয়া মৌজা এলাকা জমি অধিগ্রহন না করার দাবীতে বিক্ষোভ মানববন্ধন শেষে জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারক লিপি দিয়েছেন ভূমি মালিকেরা।

মঙ্গলবার ২৩ এপ্রিল দুপুরে নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন শেষে স্মারকলিপি জমা দেওয়া হয়।

স্মারকলিপিতে তারা উল্লেখ করেন, রূপগঞ্জ থানাধীন কেয়ারিয়া মৌজায় পুলিশের এন্টি টেররিজম ইউনিটের জন্য ভূমি অধিগ্রহণ করা হবে। বাস্তবতা হলো, কেয়ারিয়া মৌজায় ভূমির বাজার দর আর সরকারি মৌজা রেটের মধ্যে রয়েছে ২০ গুণ দামের ফারাক। অধিগ্রহনের আওতায় পড়া ভূমি মালিকেরা সেখানে গত বছর প্রতি শতাংশ ৪৫ লক্ষ টাকা করে ভূমি করে। কিন্তু সেখানে সরকারী ভাবে মৌজা রেট মাত্র ১ লাখ ৯০ হাজার টাকা। সেই সাথে ১০০ ফুট রোড সংলগ্ন জমির মূল্য শতাংশ প্রতি প্রায় ৮০ লাখ টাকা। এমতাবস্থায় যদি ভূমি অধিগ্রহণ হয় তাহলে তাদের জীবনের সকল সঞ্চয় হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে যাবে। কেননা মৌজা রেটে ভূমি অধিগ্রহণ হলে সেটি তাদের জমির মূল দামের চেয়েও ২০ শুণ কম হবে। এমতাবস্থায় তারা জেলা প্রশাসকের নিকট স্মারক লিপি দিয়ে ভূমি অধিগ্রহন না করার দাবী জানিয়েছেন।

মানববন্ধন শেষে ভূমি মালিকেরা গণমাধ্যমকে বলেন, আমরা কেয়ারিয়া এলাকার আদিবাসী। দুই শহরের মাঝে অল্প কিছু জমি রয়েছে। এই জায়গা অধিগ্রহনের জন্য সরকারের পক্ষ থেকে ২০২২ সালে নোটিশ দিয়ে ছিলো। কিন্তু ২০২৪ সালে পর্যন্ত নিতে পারেনি। এখন নতুন পরে নেওয়ার পায়তার করছে। এরপূর্বে দুই শহরের থেকে জমি অধিগ্রহন করা হয়েছে। আমরা তখন এখানে এসে বাড়ি করছি। আবারো যদি আমাদের জমি অধিগ্রহন করা হয় তাহলে আমরা কোথায় যাবো। আমাদের শেষ আশ্রয়স্থলটুকু হারালে পরিবার সন্তান নিয়ে আমাদের পথে বসতে হবে।

তারা আরো জানান কেয়ারিয়া মৌজা এলাকায় প্রায় ৫০০শত পরিবার বসবাস করে। এখানে যদি অধিগ্রহন করে তাহলে এই ৫০০টি পরিবার পথে বসবে। এছাড়া তাদেরকে ২০২২ সালে জমি অধিগ্রহনের নোটিশ দেওয়া হয়েছিলো। জমি অধিগ্রহনের আইন অনুযায়ী নোটিশের ১২০ দিনের মধ্যে জমি অধিগ্রহন না করলে সেই জমি আর অধিগ্রহন করতে পারবেনা। কিন্তু সেই সময় তারা জমি অধিগ্রহন করেনি। এখন নতুন করে আবারো জমি অধিগ্রহনের পায়তারা চালিয়ে যাচ্ছে। আমরা জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারক লিপি দিয়ে জমি অধিগ্রহন বন্ধ করার দাবি জানিয়েছি।

অনুগ্রহ করে আপনাদের ব্যক্তিগত সোশ্যাল মিডিয়া গুলিতে প্রকাশিত এই প্রতিবেদন টি শেয়ার করে আমাদের সাথেই থাকুন ধন্যবাদ।

এ জাতীয় আরও সংবাদ ক্যাটাগরি
  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৪:০০
  • ১২:০৮
  • ৪:৪৩
  • ৬:৫১
  • ৮:১৪
  • ৫:২২