স্বাস্থ্য কেন্দ্রের জন্য ৫০ হাজার মানুষের হাহাকার

লেখক: আব্দুর রহিম, খাগড়াছড়ি:
প্রকাশ: ৮ মাস আগে

পার্বত্য খাগড়াছড়ি’র গুইমারায় একটি স্বাস্থ্য কেন্দ্রের অভাবে দূর্ভোগ পোহাচ্ছে উপজেলার প্রায় ৫০হাজার মানুষ।  জেলার ৯টি উপজেলার মধ্যে গুইমারা উপজেলাটি নতুন হলেও, তার বয়স ৯বছর পেরিয়েছে।
ভৌগলিকভাবে দূর্গম এই উপজেলাটি স্বাস্থ্য সেবার দিক দিয়ে তলানীতে। কারণ গঠনের ৯বছর পেরোলেও উপজেলাবাসী পায়নি একটি সরকারী স্বাস্থ্য কেন্দ্র। যার দরুণ এখানকার বিপুল জনসাধারণ স্বাস্থ্য সেবার জন্য উপজেলা সদর থেকে প্রায় ২০কিমি. দূরে পার্শ্ববর্তী উপজেলায় যেতে হয়। আর গুরুতর অসুস্থ্য রোগিকে নিতে হয় চমেক হসপিটালে। অনেক সময় যথাযত সুযোগ সুবিধার অভাবে নিয়তির হাতেই ছেড়ে দিতে হয় তাকে। উপজেলাটি গঠনের পর থেকেই ব্যাপক উন্নয়ন কর্মযগ্য চলছে এখানে। কিন্তু মানুষের বেঁচে থাকার জন্য যে পাঁচটি মৌলিক অধিকারের প্রয়োজন তার মধ্যে একটি হচ্ছে চিকিৎসা। আর এই অধিকার থেকেই বঞ্চিত হচ্ছে এই দূর্গম এলাকার সুবিধা বঞ্চিত মানুষ গুলো। একটি স্বাস্থ্য কেন্দ্রের অভাব উপজেলার সকল উন্নয়ন কর্মকান্ডকেই যেন ম্লান করে দিচ্ছে।
স্বাস্থ্য কেন্দ্রের ব্যাপারে স্থানীয় বাসিন্দা ও সাংবাদিক, আনোয়ার হোসেন বলেন, এটা অত্যান্ত দুঃখজনক যে প্রতিষ্ঠার ৯বছর পেরিয়ে গেলেও এখনো আমরা একটি স্বাস্থ্য কেন্দ্র পাইনি। এই দূর্গম এলাকাতে কেউ অসুস্থ্য হলে আমাদেরকে ছুটতে হয়, পার্শ্ববর্তী উপজেলাতে। অনেক সময় রোগি নিতে নিতেই রোগি চলে যায় না ফেরার দেশে। যদি এই উপজেলায় একটি স্বাস্থ্য কেন্দ্র থাকতো তাহলে হয়তো অকালে কাউকে প্রান হারাতে হতোনা। সর্বোপরি একটি স্বাস্থ্য কেন্দ্র এই উপজেলাবাসীর প্রানের দাবী।
উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের ব্যাপারে জানতে চাইলে গুইমারা উপজেলা চেয়ারম্যান্যান মেমং মারমা বলেন, এটি এ এলাকার মানুষের একটি যৌক্তিক দাবী, এর জন্য আমরা সব ধরণের অফিসিয়াল কাজ সম্পন্ন করেছি, আশা করি অচিরেই এই গুইমারা বাসীকে একটি সুসংবাদ দিতে পারবো।
  • স্বাস্থ্য কেন্দ্রের জন্য ৫০ হাজার মানুষের হাহাকার