সেলিম, শামীম ওসমান ও আইভী ওরা তিন ভাইবোন কাভি খুশি কাভি বোম!

লেখক: হোসেন মনির
প্রকাশ: ৪ সপ্তাহ আগে

ওরা তিনজন। কখনো দোস্ত কখনো দুশমন। কখনো দূরে কখনো কাছে। কখনো হাসায় কখনো কাঁদায়। কখনো তুই কখনো আপনি। কখনো বোন কখনো ডাইনি। কখনো স্থানীয় কখনো অস্থানীয়।কখনো মিল কখনো অমিল। কখনো গরম কখনো নরম। কখনো শাড়ি কখনো আইসক্রিম-এ নিয়েই এদের রাজনৈতিক মহাসুখের সংসার! নারায়ণগঞ্জের রাজনীতি তথা বাংলাদেশের রাজনীতিতে শামীম ওসমান, আইভী, সেলিম ওসমানের ব্যাপক সুপরিচিতি রয়েছে। রাজনৈতিক পরিবারের এই সন্তানরা নারায়ণগঞ্জকে উন্নয়ন ও ঝগড়াঝাঁটির মাধ্যমে সারা বিশ্বে তুলে ধরেছেন। জাতীয় মিডিয়াগুলোতে প্রায় দেখা যেত শামীম আইভির বাকবিতণ্ডা। যা দেশে ও সারা বিশ্বের বাংলা কমিউনিটিতে হট টক হয়ে আজও আছে। অনেকেই বলে এই দুজনের রাগারাগি মান-অভিমান স্নেহ খুবই মজার ও আনন্দময়। মাঝে মাঝে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী তাদের উভয়কে কথা কম বলার পরামর্শ দিতেন।শামীম আইভী সেলিম ওসমানরা মানুষকে অনেক মজা আনন্দ দিলেও নারায়ণগঞ্জের সাধারণ মানুষকে দিয়েছেন ‘বেদনা’।

গত ৭ই জানুয়ারীর নির্বাচনের আগ থেকে এখন পর্যন্ত শহর ও শহরতলীর আইটি স্কুল নিতাইগঞ্জ আলামিন নগর সৈয়দপুরসহ অন্যান্য রাস্তাঘাট খুবই ভাঙ্গাচোরা,শহর বন্দর যানজট,ফুটপাত দখল,দুর্গন্ধ মশামাছিতে নাগরিক জীবন অতিষ্ঠ হয়ে আছে। এই শহরের মানুষের মাঝে প্রগাঢ় বিশ্বাস যেমন তেল জল কখনো মিশে না তেমনি শামীম-আইভি ও কখনো মিশবেনা।কিন্তু ৪ ফেব্রুয়ারি পত্রিকায় শামীম, আইভী ও সেলিম ওসমানের একসাথে পাশাপাশি বসে শহরের যানজট ফুটপাত দখল এসব বন্ধে যেসব ঘোষণা দিয়েছেন জেলা প্রশাসনকে নিয়ে তা দেখে নারায়ণগঞ্জ বাসি তথা বাংলাদেশের মানুষের চোখ কপালে উঠেছে! এমন কারিশমা কেউ কখনোই কল্পনা করতে পারেনি তাও যানজট দূরীকরন, হকার মুক্ত ইত্যাদি বিষয়ে তাদের কথা বলা নিয়ে। উক্ত মিটিং আয়োজন করেন নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাব। যে মিটিংয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক দৃঢ়তার সাথে ঘোষণা করেন যে, গত রবিবার থেকে রুট পারমিট ছাড়া কোন গাড়ি নারায়ণগঞ্জ শহরে প্রবেশ করতে পারবে না। ঢুকতে দেয়া হবে না। দেখলেই ব্যবস্থা নেয়া হবে। নিয়ম-নীতি না মান্য করলে প্রশাসন ডাম্পিংয়ে দেওয়া হবে। জেলা প্রশাসক মহোদয় আরো বলেন যে, সংসদ সদস্যরা সুন্দর নারায়ণগঞ্জের প্রত্যাশী। বিষয়টি প্রশাসনের জন্য উৎসাহব্যাঞ্জক। এটা দৃঢ় পদক্ষেপ গ্রহণের ও সহায়ক। “এটা দৃঢ় পদক্ষেপ গ্রহণেরও সহায়ক”-এই গুরুত্বপূর্ণ কথাটি ডিসি মহোদয়ের বুক চিরে বেরিয়ে এসেছে। এর মানে এই বোঝা যায় যে, একটি জেলায় বা এলাকাতে সুশাসন প্রতিষ্ঠায় সংসদ সদস্য-মেয়র-সাংবাদিক মন থেকে দুর্নীতির বিরুদ্ধে নামলে প্রশাসনেরও দৃঢ় পদক্ষেপ নিতে সহজ হয় ।

উক্ত মিটিং এ নারায়ণগঞ্জ ৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান বলেন,আমি নিজেও পরিবহন ব্যবসায়ী। আমার গাড়ি রাখি ভাড়া করা জায়গায়। আর অন্যরা রাখে রাস্তায় এমন কেন হবে? নারায়ণগঞ্জ ৫ আসনের এমপি সেলিম ওসমান বলেন,কলেজের ছাত্র-ছাত্রী যখন পরীক্ষা দিতে যায় তখন তাদের জীবন বেরিয়ে যায়!ছাত্র-ছাত্রীদের যাবার পথগুলো কাঁচা তরকারি অন্যান্য দোকানে ফুটপাত রাস্তাঘাট দখল হয়ে যায়। মেয়র আইভীর বক্তব্যটা খুব পরিষ্কার যে ২০০৩ থেকে হকার উচ্ছেদের কথা বলে আসছি ৬০০ হকারকে পুনর্বাসন করেছি। পুলিশের পদস্থ কর্মকর্তা যখন বলেন, হকার উচ্ছেদ সম্ভব নয়। তখন কিভাবে হকার রাস্তা থেকে উঠানো যায়? মেয়র আইবি আরো বলেন,আমাদের দূরত্বের কারণে কিছু অসাধু লোক কূকর্ম করে গেছে। রাজনীতিতে প্রতিযোগিতা ঝগড়া থাকবেই তাই বলে পুলিশকেতো তার কাজ করে যেতে হবে। আসলে মেয়র আইভি পুলিশকে তাঁর যথাযথ কাজ আইনানুসারে নিজস্ব গতিতেই চলতে পরামর্শ দিয়েছেন।

সবচেয়ে আসার কথা এই যে, নারায়ণগঞ্জ ৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান বলেছেন, আমরা যদি সবাই পদক্ষেপ নেই তাহলে তা ব্যর্থ হতে পারে না । আমরা সবাই মিলে এই শহরকে সুন্দর করে গড়ে তুলবো! কিন্তু প্রশ্ন উঠেছে যে,নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রেসক্লাব আয়োজিত এই গোল টেবিল মিটিংয়ে জেলা প্রশাসন নারায়ণগঞ্জ ৪ ও ৫ পাঁচ আসনের এমপি ও মেয়র আইভি সবার হঠাৎ নারায়ণগঞ্জ সুন্দর করে গড়ে তুলবো এই প্রয়োজনীয়তার উদ্রেক কেন হল? হঠাৎ কেন ফুটপাত দখলমুক্ত ও যানজট নিরসনের কথা আসছে? সাধারণ মানুষ মনে করছেন সারা বাংলাদেশে ৭ই জানুয়ারি নির্বাচনের পর শেখ হাসিনার দূরদর্শী রাজনীতির লেটেস্ট আবিষ্কার সুশাসন নিশ্চিন্তে স্বয়ংক্রিয় রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় পড়ে যাচ্ছে বিভিন্ন অসৎ দুর্নীতিগ্রস্ত প্রভাবশালীরা! এ গোলটেবিলে অংশগ্রহনকারীরা কি সে থেকে বাঁচতে হঠাৎ দায়িত্ব সচেতন হয়ে উঠলেন! দেখা যাক, নারায়ণগঞ্জ শহরকে সুন্দর গড়ে তুলতে উপস্থিত নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি শামীম ওসমান,আইভি,সেলিম ওসমান কতটা সময় একত্রে একটি লক্ষ্য বাস্তবায়নে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ থাকেন। কারণ,নারায়ণগঞ্জবাসী জানেন, ওরা তিন ভাইবোন কাভি খুশি কাভি বোম!

  • শামীম ওসমান ও আইভী ওরা তিন ভাইবোন কাভি খুশি কাভি বোম!
  • সেলিম