পররাষ্ট্রমন্ত্রীর হুঁশিয়ারির কড়া জবাব দিল যুক্তরাষ্ট্র

লেখক: নিজস্ব প্রতিনিধি
প্রকাশ: ৬ মাস আগে
পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ ও স্টেট ডিপার্টমেন্টের মুখপাত্র মিলার। ছবি : সংগৃহীত

ঢাকায় দেওয়া রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভের বক্তব্যের কড়া প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। ল্যাভরভের বক্তব্যের সমালোচনা করে মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্টের মুখপাত্র ম্যাথিউ মিলার বলেছেন, যারা প্রতিবেশী দেশকে আক্রমণ চালিয়ে নারী-শিশুসহ অসহায় মানুষদের ওপর নির্বিচারে হামলা করছে, সেই রাশিয়ার অন্য দেশের হস্তক্ষেপ নিয়ে কথা বলা উচিত নয়।

মঙ্গলবার (১২ সেপ্টেম্বর) স্টেট ডিপার্টমেন্টের নিয়মিত ব্রিফিংয়ে ল্যাভরভের ঢাকা সফরকালে দেওয়া বক্তব্যের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে এমন মন্তব্য করেন মিলার।

মিলারের কাছে প্রশ্ন করা হয়- জি-২০ সাম্মেলনের এর ঠিক আগে, রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ল্যাভরভ বাংলাদেশ সফর করেছিলেন এবং ঢাকায় তিনি বলেছিলেন, মস্কো এই অঞ্চলে মার্কিন শাসন ও হস্তক্ষেপ প্রতিষ্ঠার যে কোনো প্রচেষ্টাকে প্রতিরোধ করবে এবং ক্ষমতাসীন দলের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যুক্তরাষ্ট্রকে অভিযুক্ত করেছেন কারণ তিনি বলেছিলেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইন্দো-প্যাসিফিক স্ট্র্যাটেজির নাম দিয়ে তারা এখানে এসে এই অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ নিতে চায়। এই বিষয়ে মার্কিনদের অবস্থান কী?

এর জবাবে মিলার বলেন, আমি রাশিয়ার প্রতি সম্মান রেখে সাথে বলব, একটি দেশ যেটি তার দুটি প্রতিবেশীকে আক্রমণ করেছে, একটি আক্রমণাত্মক যুদ্ধের বিচার করছে যেখানে এটি প্রতিদিন স্কুল, হাসপাতাল এবং অ্যাপার্টমেন্ট বিল্ডিংগুলোতে বোমা হামলা চালায়, অন্য কোনো দেশের আদেশ চাপিয়ে দেওয়ার কথা বলা উচিত নয়। এটি একটি মোটামুটি- এটি সের্গেই ল্যাভরভের করা সবচেয়ে স্ব-সচেতন মন্তব্য নয়। তবে আমি বলব, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নীতির ক্ষেত্রে, ভারত-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলকে মুক্ত এবং উন্মুক্ত, সংযুক্ত, সমৃদ্ধ, নিরাপদ এবং স্থিতিস্থাপকতা নিশ্চিত করার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং বাংলাদেশ একটি দৃষ্টিভঙ্গি ভাগ করে নেয়। এটাই আমাদের ইন্দো-প্যাসিফিক কৌশলের উদ্দেশ্য এবং এটাই আমাদের অবস্থান।

বাংলাদশের দুই সিনিয়র সাংবাদিক শফিক রেহমান এবং মাহমুদুর রহমানকে নিয়ে করা এক প্রশ্নের জবাবে মিলার বলেন, আমরা বিশ্বাস করি, যেমনটি আমরা বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠানে বলেছি, যে কোনো গণতন্ত্রে সাংবাদিকরা অপরিহার্য ভূমিকা পালন করে। তাদের কাজ দুর্নীতি উন্মোচন করে, জনসাধারণের তথ্য জানার অধিকার রক্ষা করে যা তাদের জীবনকে প্রভাবিত করে। তারা তাদের দৈনন্দিন জীবনে যে সমস্যাগুলোর মুখোমুখি হয় সে সম্পর্কে জনসাধারণকে সচেতন করতে সক্ষম হওয়া দরকার। তাদের নির্বাচিত কর্মকর্তাদের জন্য জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে যেভাবে আপনি সবাই দেখান এবং আমি এখানে প্রতিদিন যা বলি তার জন্য জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে। তারা হয়রানি, সহিংসতা বা ভয়ভীতি ছাড়াই তাদের কাজ করতে সক্ষম হবে। এবং আমরা সাংবাদিক ও মিডিয়া ব্যক্তিত্বদের ওপর বাংলাদেশ সরকারের পদ্ধতিগত এবং ব্যাপক নিপীড়নের সাথে উদ্বিগ্ন যারা সরকারকে জবাবদিহি করার চেষ্টা করে।

  • পররাষ্ট্রমন্ত্রীর হুঁশিয়ারির কড়া জবাব দিল যুক্তরাষ্ট্র